Breaking Posts

6/trending/recent
Type Here to Get Search Results !

ভিনধর্মী যুবককে বিয়ে করায় কন্যাকে খুনের চেষ্টা করলেন পিতা ইসলাম খান

Image Credits: ETV

মেয়ে ভিনধর্মী ছেলেকে বিয়ে করায় মনে ক্ষোভ তো ছিলই। কিন্তু তা বলে নিজের মেয়েকে খুনের চেষ্টা করতে পারেন বাবা, এমনটা ভেবেই শিউরে উঠছেন অনেকে। কিন্তু বাস্তবে সেটাই হলো। নিজের মেয়েকে গাড়ি চাপা দিয়ে খুনের চেষ্টা করলেন ইসলাম খান নামে এক ব্যক্তি। যদিও খুনের চেষ্টা সফল হয়নি। নিজের উপস্থিত বুদ্ধির জোরে বেঁচে যান তাঁর মেয়ে। ঘটনা রাজস্থানের ভরতপুরের। 

জানা গিয়েছে, ভরতপুরের মালী মহল্লার বাসিন্দা নরেন্দ্র কুমার সৈনি। একই এলাকার তরুণী নাগমা খানের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল তাঁর। এ বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে দুজনে বিয়ে করার উদ্দেশ্যে বাড়ি ছাড়েন। তারপর দিল্লীর আর্য সমাজ মন্দিরে বিয়ে করেন। বিয়ের পর কিছুদিন দিল্লীতে কাটিয়ে ভরতপুরে ফিরে আসেন তাঁরা।

এদিকে এই ঘটনা মেনে নিতে না পেরে থানায় নরেন্দ্র সৈনির বিরুদ্ধে মেয়েকে অপহরণ ও ফুঁসলিয়ে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ, নাগমার পরিবারের লোকজন নরেন্দ্রকে নানাভাবে হুমকি দিতে থাকে। সেই ভয়ে ফের এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যান নরেন্দ্র ও নাগমা। তাঁরা বেশ কিছুদিন মধ্য প্রদেশে থাকেন। কিন্তু নাগমা গর্ভবতী হওয়ায় বেশ কিছুদিন আগেই এলাকায় ফিরে আসেন তাঁরা।

গতকাল নাগমাকে চেক আপের জন্য হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিলেন নরেন্দ্র। সেই সময় রাস্তায় তাদেরকে গাড়ি চাপা দিয়ে হত্যার চেষ্টা করেন নাগমার পিতা পেশায় অটোচালক ইসলাম খান। কিন্তু উপস্থিত বুদ্ধির জোরে প্রাণে বেঁচে যান নাগমা ও নরেন্দ্র।

গর্ভবতী নগমা কোনও ক্রমে নিজের প্রাণ বাঁচান। হইচইতে ঘটনাস্থলে লোকজন জড়ো হয়ে যায়৷ তখন ইসলাম খান অটো নিয়ে পালিয়ে যায়৷ জানা গিয়েছে, অটোয় ইসলামের সঙ্গে আরও অনেকে ছিল৷ খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছয় এবং স্থানীয়দের জিজ্ঞাসাবাদ করে৷ আতঙ্কিত নরেন্দ্র-নগমাকে থানায় নিয়ে এসে পুলিশ তাঁদের সঙ্গে কথা বলে৷ রাতে পুলিশের গাড়িতেই দম্পতিকে বাড়ি পৌঁছে দেওয়া হয়৷ নরেন্দ্র-নগমার অভিযোগ, নগমার বাবা তাঁদের খুন করতে অটোয় বেআইনি অস্ত্রও সঙ্গে নিয়ে এসেছিল৷ মথুরাগেট থানার পুলিশ আধিকারিক রামনাথ জানিয়েছেন, এই ঘটনায় দম্পতি মামলা দায়ের করেছেন। এফআইআরের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু হয়েছে।

Post a Comment

0 Comments
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.

Top Post Ad

Ads Bottom