Breaking Posts

6/trending/recent
Type Here to Get Search Results !

নেপালকে ইসলামিক রাষ্ট্র বানানোর ষড়যন্ত্র, তৈরি হচ্ছে শত শত মসজিদ-মাদ্রাসা; চলছে ধর্মান্তরন

Image credits: iStock, Zee News



ভারতের প্রতিবেশী রাষ্ট্র নেপালকে ইসলামিক রাষ্ট্রে রূপান্তরিত করতে চলছে বিরাট ষড়যন্ত্র। বিদেশ থেকে আসছে প্রচুর অর্থ, আর তা দিয়ে নির্মিত হচ্ছে শত শত মসজিদ ও মাদ্রাসা। অর্থ ও চাকরির লোভ দেখিয়ে প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের হিন্দুদের ইসলামে ধর্মান্তরিত করা হচ্ছে। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে যাচ্ছে যে ভবিষ্যতে হয়তো নেপালে হিন্দুরাই সংখ্যালঘু হয়ে পড়বে। জি নিউজ প্রকাশিত এক রিপোর্টে এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এসেছে। 

তরাই অঞ্চলে রয়েছে ৬৯৪ মসজিদ-মাদ্রাসা

রিপোর্ট অনুযায়ী, ভারতের সীমান্ত ঘেঁষা নেপালের তরাই অঞ্চলের গ্রামগুলোতে মোট ৬৯৪টি মসজিদ ও মাদ্রাসা রয়েছে। এদের মধ্যে ৩৬৪টি মসজিদ এবং ৩৩০টি মাদ্রাসা। গত ২ বছরে নেপালে সক্রিয় ইসলামিক এনজিও এবং সংগঠন প্রায় ৫০০ কোটি টাকা অর্থ সাহায্য পেয়েছে। আর এই অর্থ সাহায্য এসেছে কাতার, তুরস্ক এবং পাকিস্তান থেকে। এদের মধ্যে ভারতের একটি ইসলামিক সংগঠন নেপালে মসজিদ ও মাদ্রাসা নির্মাণের জন্য ৪৭ কোটি টাকা অনুদান দিয়েছে।

কোন কোন দেশ থেকে কত অর্থ সাহায্য এসেছে

  • ভারত-নেপাল সীমান্তের কাছে থাকা নেপালের গ্রামগুলিতে মসজিদ ও মাদ্রাসা নির্মাণের জন্য ২০২০ খ্রিস্টাব্দের অক্টোবর মাসে ৩৫০ কোটি টাকা পাঠিয়েছে কাতার ও তুরস্ক। 
  • একটি মাদ্রাসা নির্মাণের জন্য ২০২১ খ্রিস্টাব্দের জানুয়ারি মাসে কাতার ৯০ লাখ টাকা পাঠায়।
  • মাদ্রাসা নির্মাণের জন্য ২০২১ খ্রিস্টাব্দের অক্টোবর মাসে ২৫ কোটি টাকা পাঠায় পাকিস্তান।
  • ২০২০ খ্রিস্টাব্দের ফেব্রুয়ারি মাসে একটি আন্তর্জাতিক ইসলামিক সংগঠন ১০০ কোটি টাকা ফান্ডিং করে। 
একটি গ্রামে চার-চারটি মাদ্রাসা

জি নিউজের সাংবাদিক মনীশ শুক্লা লিখেছেন, ‛ভারত-নেপাল সীমান্তের কাছে থাকা নেপালের বেশিরভাগ গ্রামের একই অবস্থা। নেপালের সীমা থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে একটি গ্রামে গিয়েছিলাম। সেই গ্রামেই রয়েছে চারটি মাদ্রাসা। গ্রামবাসীরা জানায় যে এর মধ্যে কয়েকটি মাদ্রাসা একদম নতুন। গ্রামে সরকারি স্কুল থাকা সত্বেও গ্রামবাসীরা তাদের সন্তানদের সেখানে পড়তে পাঠায় না। বরং সকলে মাদ্রাসায় পড়ছে। 

আর একটি গ্রামেও জোরকদমে মসজিদ ও মাদ্রাসার নির্মাণ কাজ চলছে। গ্রামবাসীদের কাছে যখন জানতে চাইলাম যে এই মাদ্রাসা নির্মাণের জন্য এত অর্থ কোথা থেকে আসছে। উত্তরে এক গ্রামবাসী জানান যে মাদ্রাসা নির্মাণের অর্থ তাঁরা নিজেরা মিলে বহন করছেন।

নেপালের একাধিক জেলায় হিন্দুদের ধর্মান্তরিত করার কাজ চলছে। প্রচুর অর্থ দেওয়ার টোপ, গাল্ফ দেশগুলিতে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার প্রলোভন দিয়ে ইসলামে ধর্মান্তরিত করা হচ্ছে হিন্দুদের। আর সেই ফাঁদে পা দিয়ে নেপালের অনেকেই ইসলামে ধর্মান্তরিত হচ্ছে।

 আসুন জেনে নেওয়া যাক, কোথায় কতজন ইসলামে ধর্মান্তরিত হয়েছে

  •  মোরং- ৪৩
  • ঝাপা- ৩০
  • বিরাটনগর- ৭৮
  • সুনসারী- ২৯ 
  • কাঠমান্ডু- ১৫

মুসলিম রাষ্ট্র বানানোর ষড়যন্ত্র

কিছুদিন আগে SSB প্রকাশিত এক রিপোর্টে এমনই তথ্য উঠে এসেছিল। নেপালের সীমান্ত এলাকার মতই ভারতের নেপাল সীমান্তবর্তী এলাকায় বিপুল হারে বেড়েছে মসজিদ ও মাদ্রাসার সংখ্যা। বিপুল অর্থ খরচ করে নির্মাণ করা হচ্ছে চোখ ধাঁধানো মসজিদ। যা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে SSB জানিয়েছিল যে এলাকার জনবীন্যাস বদলে দিতে বিদেশি শক্তির মদতে এসব করা হচ্ছে। 

ঠিক একইভাবে নেপালেও জনবিন্যাস বদলে দেওয়ার চক্রান্ত চলছে। একাধিক ইসলামিক সংগঠন হিন্দুদের ইসলামে ধর্মান্তরিত করার কাজ করে চলেছে। প্রচুর অর্থ দেওয়ার টোপ, গাল্ফ দেশগুলিতে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার প্রলোভন দিয়ে ইসলামে ধর্মান্তরিত করা হচ্ছে হিন্দুদের। আর সেই ফাঁদে পা দিয়ে নেপালের অনেকেই ইসলামে ধর্মান্তরিত হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, নেপালের মাটিতে দীর্ঘদিন ধরেই পাকিস্তানের আইএসআই সক্রিয় রয়েছে, এমনটা বারবার বলে এসেছে ভারত। নেপালে ইসলামিক কট্টরপন্থী বীজ বপন করার কাজেও তাদেরই হাত রয়েছে বলে মনে করছেন ভারতীয় গোয়েন্দারা। তাদের আশঙ্কা, নেপালকে কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলে ভারতে জঙ্গি অনুপ্রবেশ করানোর চেষ্টা করতে পারে পাকিস্তান। তাই ভারতকে সীমান্ত সুরক্ষায় আরও কড়া ব্যবস্থা নিতে হবে বলেই তাদের মত।


Post a Comment

0 Comments
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.

Top Post Ad

Ads Bottom