Breaking Posts

6/trending/recent
Type Here to Get Search Results !

মাদ্রাসা শিক্ষার আধুনিকরণের বিরোধিতা দারুল উলুম দেওবন্দের


দারুল উলুম দেওবন্দ- ভারতের বৃহত্তম ইসলামিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মাদ্রাসা শিক্ষার আধুনিকরণের প্রস্তাবের বিরুদ্ধে সরব। তাদের যুক্তি, মাদ্রাসার পাঠ্যক্রম আধুনিক করলে মাদ্রাসা শিক্ষা তার উদ্দেশ্য হারাবে। 

দারুল উলুমের ধর্মগুরুদের যুক্তি, মাদ্রাসা শিক্ষার আধুনিকরণের কোনও প্রয়োজন নেই। বরং পুরোনো নিজামি ধাঁচের সিস্টেম ধরে রাখা উচিত। আধুনিক শিক্ষার প্রবেশ মানেই হলো মাদ্রাসার শিক্ষা অর্থহীন হয়ে পড়া। 

দেওবন্দের মুহতামিম(ভাইস চ্যান্সেলরের সমতুল্য পদ) মাওলানা মুফতি আব্দুল কাসিম নোমানী বলেন, “কিছু অজ্ঞ ব্যক্তি মাদ্রাসা শিক্ষার আধুনিকরণের পক্ষে মত প্রকাশ করছেন। তাঁরা মাদ্রাসায় আধুনিক পাঠ্যক্রম চালু করার পক্ষে। কিন্তু আমাদের তার কোনও প্রয়োজন নেই। এইসব প্রস্তাবকে ঐক্যমতভাবে প্রত্যাখ্যান করা উচিত এবং পুরোনো নিজাম ধাঁচের শিক্ষা ব্যবস্থা চালু রাখা উচিত”।

তিনি আরও বলেন যে মাদ্রাসায় বর্তমানে যে পাঠক্রম রয়েছে, তা মাদ্রাসার আসল উদ্দেশ্যকে মাথায় রেখেই করা হয়েছে। আর সেই পাঠক্রম পরিবর্তন করে যদি আধুনিক শিক্ষার উপযোগী পাঠক্রম চালু করা হয়, তবে এই মাদ্রাসা শিক্ষার কোনও মূল্য থাকবে না।

প্রসঙ্গত, দারুল উলুম দেওবন্দের তরফে এমন বক্তব্য রাতারাতি আসেনি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বারবারই মাদ্রাসা শিক্ষার আধুনিকরণের পক্ষে বলে আসছেন। মুসলিম শিশুদের বেশি করে মুলস্রোতে ফেরাতে এমন উদ্যোগ নেওয়ার কথা বলে আসছেন তিনি। মাদ্রাসায় বিজ্ঞান শিক্ষা ও কম্পিউটার চালু করা, অন্যান্য বৃত্তিমূলক শিক্ষা চালু করার পক্ষেই মুখ খুলেছেন মোদী। কিন্তু দারুল উলুম দেওবন্দ, যা সরাসরি দেশের লাখ লাখ মাদ্রাসাকে প্রভাবিত করে, সেই আধুনিক শিক্ষার বিরুদ্ধে। তাদের বক্তব্য, মাদ্রাসা ইসলামিক শিক্ষা দেওয়ার জন্যই। ফলে মাদ্রাসাকে আধুনিক করার যে স্বপ্ন মোদী দেখেছিলেন, তা আপাতত বিষ বাঁও জলে বলে মনে করছেন ওয়াকিবহাল মহল। 

Post a Comment

0 Comments
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.

Top Post Ad

Ads Bottom