Breaking Posts

6/trending/recent
Type Here to Get Search Results !

ধনতেরাস

Image credits: Hindustan Times

©  শ্রী সূর্য শেখর হালদার


ধনতেরাস হল হিন্দু ক্যালেন্ডারের কার্তিক মাসের কৃষ্ণপক্ষের তেরো তম দিন। এই দিনটি  সনাতন ধর্ম ও  সংস্কৃতিতে এক বিশেষ তাৎপর্য বহন কারী দিন। 


রামায়ণে, মহাভারতে  এবং পুরাণে আমরা সমুদ্রমন্থনের কথা পড়েছি। দেব আর অসুররা মিলে নাগরাজ বাসুকি কে রজ্জু বানিয়ে ক্ষীরোদ সাগর মন্থন করেছিলেন। নাগরাজ বদ্ধ ছিলেন মন্দার পর্বত যাকে পৃষ্ঠে ধারণ করেছিলেন ভগবান বিষ্ণুর কূর্ম অবতার।

এই মন্থনের সময় সমুদ্র থেকে উঠে আসেন ধন্বন্তরি। ধন্বন্তরি এর এক হাতে ছিল অমৃত পূর্ণ কলস আর একহাতে আয়ুর্বেদের গ্রন্থ। একহাতে শঙ্খ। আরেক হাতে ধানের শীষ। অমৃত পূর্ণ কলস ছিল আয়ুর্বেদ এর প্রয়োজনীয় বিভিন্ন লতা ও বনৌষধি পূর্ণ। ধন্বন্তরি সনাতন ধর্মে আয়ুর্বেদের বা চিকিৎসার  দেবতা। এই পবিত্র দিনে তাঁর উত্থান হয়েছিল। তাই তাঁর নামে এই ত্রয়োদশীর দিন টিকে ধনতেরাস বলে অভিহিত করা হয়। এই দিন ধন্বন্তরির পূজা করা হয়।


কথিত আছে সমুদ্র মন্থনের ফলে এই বিশেষ দিনে লক্ষ্মী দেবীর ও উত্থান হয় ক্ষীরোদ সাগর থেকে। তাই এই দিন লক্ষী পূজা করা করা হয়ে থাকে। 


সনাতন ধর্মালম্বীরা এই দিনটিকে অত্যন্ত শুভ বলে ধরেন । এটি দীপাবলি উৎসবের প্রথম দিন। এই দিন ঘরবাড়ি পরিষ্কার করা হয়। অনেকে বাড়ি রঙ করে থাকেন।প্রথা মেনে এই দিনে নতুন কিছু কিনতে হয়। বেশির ভাগ মানুষ ধাতুর তৈরি কোন জিনিস কিনে থাকেন। অনেকে লক্ষী দেবী সম্পদের দেবী বলে, মূল্যবান ধাতু যেমন সোনা, রূপা বা মূল্যবান অলংকার কিনে থাকেন। এইদিন গাড়ি কিংবা গৃহের প্রয়োজনীয় কোন দ্রব্য কেনারও প্রথা আমাদের দেশে আছে। এই দিন রাত্রে লক্ষ্মী দেবীর উদ্দেশ্যে বাড়িতে মাটির দীপ প্রজ্জ্বলন করতে হয়। তুলসী তলাতে প্রদীপ দিতে হয়। এই প্রদীপ জালানো হয় মৃত্যুর দেবতা যমরাজের উদ্দেশ্যে। অনভিপ্রেত অকাল মৃত্যু প্রতিরোধ করাই এর উদ্দেশ্য। 


বন্ধুদের সবাইকে ধনতেরাস দীপাবলির শুভেচ্ছা জানাই। সবাইকে সন্ধ্যায় মাটির দীপ প্রজ্জ্বলন করতে অনুরোধ জানাই। আসুক আলোর দীপাবলী। উজ্জ্বল হোক আমাদের অর্থনীতি।

 কেটে যাক সমস্ত অন্ধকার, নাস্তিকতা, অধর্ম। 


Post a Comment

0 Comments
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.

Top Post Ad

Ads Bottom