Breaking Posts

6/trending/recent
Type Here to Get Search Results !

বাংলাদেশ: কুমিল্লার শ্মশান কালী মন্দিরে হামলা ও মূর্তি ভাঙচুর, অভিযোগ হোসেনের বিরুদ্ধে

ছবি: ভাঙা মা কালীর মূর্তি

দিনাজপুরের পর এবার ঘটনাস্থল কুমিল্লা। দিনাজপুরের মতোই মৌলবাদীদের আক্রমণের শিকার হলো একটি কালী মন্দির। গত ৫ই নভেম্বর, রাতের অন্ধকারের সুযোগ নিয়ে কালী মন্দিরে হামলা চালালো অজ্ঞাতপরিচয় দুষ্কৃতীরা। তাঁরা মন্দিরের ভিতরে থাকা মা কালীর প্রতিমা ভেঙে দেয়। আর ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে কুমিল্লার মুরাদনগরে। স্থানীয়দের অভিযোগ, হোসেন নামে স্থানীয় এক ব্যক্তি এই ঘটনা ঘটিয়েছেন।

জানা গিয়েছে, কুমিল্লার মুরাদনগর থানার অন্তর্গত দারোরা শ্মশান কালী মন্দির একটি জনপ্রিয় মন্দির হিসেবে পরিচিত। মন্দিরটি সরকারি দপ্তরে নথিভুক্ত। এছাড়াও, মন্দিরের পাশেই রয়েছে শ্মশান। তথ্য অনুযায়ী, মন্দির এবং শ্মশান মিলিয়ে মোট জমি ৭৮৪০.৮ বর্গফুট। এর মধ্যে মন্দির রয়েছে ১৩০৬.৮ বর্গফুট জমির উপরে এবং বাকি জমির মধ্যে ৫২২৭.৬ বর্গফুট জমি হিন্দু সম্প্রদায়ের ব্যবহৃত শ্মশান হিসেবে সরকারি দপ্তরে নথিভুক্ত।

অভিযোগ, হোসেন নামে স্থানীয় এক প্রভাবশালী ব্যক্তি বেশ কয়েক বছর ধরেই শ্মশানের জমি দখল করার চেষ্টা চালিয়ে আসছেন। একাধিকবার হুমকিও দিয়েছেন মন্দির কমিটির লোকজনকে। এমনকি বছর খানেক আগেই মন্দিরের জমির মালিকানা দাবি করে আদালতে মামলা দায়ের করেছিলেন হোসেন। কিন্তু সেই মামলায় হেরে যান তিনি। ফের একবার এই বছরে প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়েছিলেন হোসেন। নানাভাবে হুমকিও দিচ্ছিলেন হোসেন, এমনটাই অভিযোগ। তাই মন্দির ও শ্মশানের জমি দখলের উদ্দেশ্যে হোসেনের লোকজন এমন কান্ড ঘটিয়েছেন বলে অভিযোগ স্থানীয় বাসিন্দাদের একাংশের।

তারপরই মন্দির কমিটির লোকজন সমস্যা সমাধানে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দ্বারস্থ হয়েছিলেন। মূর্তি ভাঙার কয়েকদিন আগেই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মন্দিরস্থল এবং পাশের শ্মশান পরিদর্শন করেন এবং ১০-১২ দিনের মধ্যেই বিষয়টির সমাধান করার আশ্বাস দেন। কিন্তু এরই মধ্যে মন্দিরে হামলার ঘটনা ঘটে।

ইতিমধ্যেই মুরাদনগর থানায় মন্দির কমিটির তরফে অজ্ঞাতপরিচয় দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করলেও এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার কোর্টের পারেনি পুলিশ।

Post a Comment

0 Comments
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.

Top Post Ad

Ads Bottom